শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপের মাঝেই বরখাস্ত পুরো ক্রিকেট বোর্ড

ক্রাইম রিপোর্ট ডেস্ক


চলতি বিশ্বকাপে নিজেদের সবশেষ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে মাত্র ৫৫ রানেই গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। এর আগে, দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপখ্যাত এশিয়া কাপের ফাইনালে মাত্র ৫০ রান অলআউট হয়েছিল লঙ্কানরা।

ওয়ানডে বৈশ্বিক মহারণে এখন পর্যন্ত দুই জয়ে টেবিলের সাতে লঙ্কানরা। নিজেদের অষ্টম ম্যাচে সোমবার (৬ নভেম্বর) বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে নামবে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামার আগেই ভেঙে দেওয়া হয়েছে লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি)। পাশাপাশি সাবেক বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক অর্জুনা রানাতুঙ্গার নেতৃত্বাধীন কমিটিকে নতুন পরিচালনা কমিটি নিয়োগের আগ পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে লজ্জাজনক হারের পর ক্রিকেটারসহ সবাইকে কারণ দর্শানোর নোটিস দিয়েছিল এসএলসি। একই সময়ে প্রকাশ্যে আসে দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বোর্ডের মতবিরোধের সংবাদ। এরপর শনিবার (৪ নভেম্বর) পদত্যাগ করেন এসএলসি সেক্রেটারি মোহন ডি সিলভা।

এর আগে, এক বিবৃতিতে ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাহী কমিটির পদত্যাগের দাবি করেছিলেন শ্রীলঙ্কার ক্রীড়ামন্ত্রী রোশান ফার্নান্দো। পদত্যাগের কোনো নির্দিষ্ট কারণ জানাননি ডি সিলভা। তবে ধারণা করা হচ্ছে, দলের ব্যর্থতার কারণেই সরে দাঁড়াচ্ছেন তিনি। আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি ছাড়াই সেক্রেটারির পদ থেকে সরে দাঁড়ান সিলভা।

তবে এবার সোমবার পুরো ক্রিকেট বোর্ডকেই বরখাস্ত করেছেন লঙ্কান ক্রীড়া মন্ত্রী। ১৯৭৩ সালে প্রণীত শ্রীলঙ্কার ক্রীড়া আইনে রানাতুঙ্গাকে চেয়ারম্যান করে ৭ সদস্যের পরিচালনা কমিটি করা হয়েছে।

রানাতুঙ্গা ছাড়াও এ কমিটিতে আছেন, শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের সাবেক প্রেসিডেন্ট উপালি ধর্মদাসা, রোহিণী মারাসিংহে, অবসরপ্রাপ্ত বিচারক এস আই ইমাম ও ইরাঙ্গানি পেরেরা, ব্যবসায়ী হিশাম জামালদিন এবং আইনজীবী রাকিথা রাজাপক্ষে।

এদিকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) নিয়ম অনুযায়ী, বোর্ডের কোনো কাজে হস্তক্ষেপ করতে পারবে না কোনো দেশের ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।

অন্যদিকে লঙ্কান সরকারের আইন অনুসারে, লঙ্কান বোর্ডের কার্যাবলি পর্যবেক্ষণের ক্ষমতা রয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের।

দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) গত এক বছর ধরে তিক্ত সম্পর্ক চলছিল। তবে সম্প্রতি তা উষ্ণতায় রূপ নিয়েছে। বর্তমানে আবারও তা তিক্ততার দিকে এগোচ্ছে।

কয়েকদিন আগেই আইসিসিকে একটি চিঠিও পাঠিয়েছিলেন রানাসিংহে। সেই চিঠিতে বোর্ডের কর্তাদের ‘লজ্জাহীন, বিশ্বাসঘাতক ও অবিশ্বস্ত’ আখ্যা দিয়েছিলেন তিনি।

Comments are closed.

More News Of This Category